জিজ্ঞাসাবাদে যেখানে আ’ট’কে যান সাবরিনা- বিডিজবসইনফো

জিজ্ঞাসাবাদে যেখানে আ’ট’কে যান সাবরিনা

জেকেজি হেলথকেয়ারের চেয়ারম্যান ও জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের চিকিৎসক ডা. সাবরিনা আরিফকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তেজগাঁও বিভাগীয় উপ-পু’লিশ কমিশনার (ডিসি) কার্যালয়ে ডা’কা হয়েছিল দুপুরে। কয়েক ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদের পর তাকে গ্রে’’ফতার দেখানো হয়।

জিজ্ঞাসাবাদে বারবারই অস্বীকার করছিলেন যে তিনি জেকেজির চেয়ারম্যান নন। এ বিষয়ে বিকেলে ডিসি কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে ডিসি মোহা’ম্ম’দ হারুন অর রশিদ জিজ্ঞাসাবাদের একাংশ তুলে ধরেন। জিজ্ঞাসাবাদে অনেক প্রশ্নের উত্তর দিতেই আ’ট’কে যান ডা. সাবরিনা।

ডিসি হারুন বলেন, জিজ্ঞাসাবাদে উনাকে (ডা. সাবরিনা) প্রশ্ন করা হলো, ‘আপনি কি জেকেজির চেয়ারম্যান?’ উনি বললেন, ‘না, আমি কখনোই চেয়ারম্যান না।’

‘আমি (ডিসি হারুন) বললাম, কয়েক দিন আগেই তো আপনাকে চেয়ারম্যান পদ থেকে বহিষ্কার করলো। তাছাড়া আপনি তিতুমীর কলেজের ঘটনায় দাঁড়িয়ে জেকেজির পক্ষে কথা বললেন, মুখপাত্র হিসেবে, চেয়ারম্যান হিসেবে কথা বললেন।

সেটা কী’ ছিল? উত্তরে সাবরিনা বলেন, ‘সেটা আমা’র হাসব্যান্ড (জেকেজির সিইও আরিফুল হক চৌধুরী) আমাকে বলতে বলেছিল।’ জিজ্ঞাসাবাদের বিষয়ে ডিসি হারুন বলেন, জেকেজির কর্মকা’ণ্ড ও তার কর্মকা’ণ্ড নিয়ে আরও কিছু প্রশ্ন করা হয়েছিল, তিনি কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি। আম’রা মনে করি, যে কোম্পানি মানুষকে ক্ষতি করছে, যারা ক’রো’না নেগেটিভকে পজিটিভ আর পজিটিভকে নেগেটিভ বানাচ্ছে, মানুষের স’ঙ্গে প্রতারণা করছে, বিদেশের মাটিতে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করছে সেই প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান হিসেবে আম’রা তাকে গ্রে’’ফতার করি।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে ডিসি বলেন, যেহেতু তিনি (ডা. সাবরিনা) একটি সরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মক’র্তা, তিনি কোনোভাবেই একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান থাকতে পারেন না, আবার চেয়ারম্যান থাকাকালীন সেই কোম্পানির মুখপাত্র হিসেবে বক্তব্য দিতে পারেন না। উনি যেহেতু ফেসবুকেও জেকেজির পক্ষে স্টেটমেন্ট দিয়েছেন তাই জেকেজির কর্মকা’ণ্ডের দায়দায়িত্ব তিনি এড়াতে পারেন না। এ কারণেই তাকে গ্রে’’ফতার করে রি’মান্ডে আনা হচ্ছে।

   Join our Facebook group

উত্তর দিন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না.